শিশুর কোমল ত্বকের যত্মে

0
20

শিশু ডেস্ক>> দিন দিন আবহাওয়া হয়ে উঠছে শুষ্ক। বাতাস হারাচ্ছে আর্দ্রতা। এ সময় বড়দের পাশাপাশি শিশুদের ত্বকও শুষ্ক হয়ে পড়তে পারে। ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে আর হারানো আর্দ্রতা ফিরে পেতে প্রয়োজন বাড়তি যত্ম। আবার শিশুর ত্বকের যত্মের বিষয়ে প্রচলিত আছে নানা মত।

এই সময় শিশুর ত্বকের যত্ম এবং বছরের অন্য সময় শিশুদের ত্বকে প্রসাধন সামগ্রী প্রয়োগ বড়দের প্রসাধনী শিশুদের ত্বকে মানিয়ে নিতে অসুবিধা হতে পারে। তাই সব সময় শিশুদের উপযোগী প্রসাধনসামগ্রী শিশুর ত্বকে লাগানো উচিত।

শুষ্ক আবহাওয়ায় শিশুর ত্বকে লোশন ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি শিশুর ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করবে। তবে শিশুদের ত্বকের উপযোগী ভালো ব্রান্ডের লোশন লাগানো উচিত শিশুর ত্বকে। কেউ কেউ শিশুর পুরো শরীরেই পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহার করতে চান। তবে শিশুর পুরো শরীরে এভাবে পেট্রোলিয়াম জেলি লাগানো উচিত নয়। শিশুর ঠোঁটে পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহার করতে পারেন। অনেকে মনে করেন শিশুদের ত্বকে বুঝি তেল লাগাতেই হবে। সৈয়দা আফরোজা জানালেন, শিশুর ত্বকে তেল লাগানোর ব্যাপারে কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। গোসল করানোর আগে শিশুর ত্বকে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করে দিতে পারেন। এ ছাড়া অন্য সময় শিশুর ত্বকে তেল না লাগালেও চলবে।

কেউ কেউ আবার শিশুর ঠান্ডা লেগে গেলে তার বুকে-পিঠে তেল মালিশ করে থাকেন। এটি ঠিক নয়। ফলে ঘাম বসে গিয়ে শিশুর সমস্যা বাড়তে পারে। আবহাওয়া ঠান্ডা না হলে শিশুর ত্বকে পাউডার ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে খুব বেশি পরিমাণ পাউডার একবারে লাগিয়ে দেয়া ঠিক নয়। শিশুর কোমল ত্বকে প্রতিদিন সাবান দেয়ার প্রয়োজন নেই। নিয়মিত গোসল করালেই শিশুর ত্বক পরিষ্কার থাকবে। আর সাবান ব্যবহারের ক্ষেত্রে বেছে নিন শিশুর ত্বকের উপযোগী সাবান। বড়রা যে সাবান ব্যবহার করে থাকেন সেগুলো শিশুর ত্বকের জন্য মানানসই নয়। শিশুর কোমল ত্বকে তাই বড়দের সাবান না লাগানোই ভালো। ঘরের বাইরে খেলাধুলা শেষে শিশু ঘরে ফেরা মাত্রই তার হাত-পায়ের ত্বক পরিষ্কার করে দিন। ময়লা হাতে খাবার খেলে শিশু পেটের পীড়ায় ভুগতে পারে। আর এভাবে বাইরে থেকে এসে হাত-পা ধোয়ার অভ্যাসটাও শিশু রপ্ত করে নেবে।